Assisted Bangla Reading - Mouseover

<< Back to Index of Assisted Bangla Reading

দুষ্ট বাঘ
The Wicked Tiger
by Upendrakishore Ray Chaudhury
 
রাজার বাড়ির সিংহ-দরজার পাশে, লোহার খাঁচায় একটা মস্ত বাঘ ছিলরাজার বাড়ির সামনে দিয়ে যত লোক যাওয়া আসা করত, বাঘ হাত জোড় করে তাদের সকলকেই বলত,'একটিবার খাঁচার দরজাটা খুলে দাও না দাদা!'

শুনে তারা বলত,'তা বইকি! দরজাটা খুলে দি,আর তুমি আমাদের ঘাড় ভাঙো ৷'

এর মধ্যে রাজার বাড়িতে খুব নিমন্ত্রণের ধুম লেগেছেবড়-বড় পন্ডিত মশাইয়েরা দলে-দলে নিমন্ত্রণ খেতে আসছেনতাঁদের মধ্যে একজন ঠাকুর দেখতে ভারি ভালোমানুষের মতো ছিলেনবাঘ এই ঠাকুরমশাইকে বারবার প্রণাম করতে লাগল

তা দেখে ঠাকুরমশাই বললেন, 'আহা, বাঘটি তো বড় লক্ষ্মী ! তুমি কি চাও বাপু ৷'

বাঘ হাত জোড় করে বললে,'আজ্ঞে, একটি বার যদি এই খাঁচার দরজাটা খুলে দেন ! আপনার দুটি পায়ে পড়ি ৷'

ঠাকুরমশাই কিনা বড্ড ভালোমানুষ ছিলেন, তাই তিনি বাঘের কথায় তাড়াতাড়ি খাঁচার দরজা খুলে দিলেন

তখন হতভাগা বাঘ হাসতে-হাসতে বাইরে এসেই বললে, 'ঠাকুর, তোমাকে তো খাব !'

আর কেউ হলে হয়তো ছুটে পালাতকিন্তু এই ঠাকুরটি ছুটতে জানতেন নাতিনি ভারি ব্যস্ত হয়ে বললেন,'এমন কথা তো কখনো শুনিনি ! আমি তোমার এত উপকার করলাম আর তুমি বলছ কিনা আমাকে খাবে ! এমন কাজ কি কেউ কখনো করে?'

বাঘ বললে,'করে বইকি ঠাকুর, সকলেই তো করে থাকে ৷'

ঠাকুরমশাই বললেন,'তা কখনোই নয়! চল দেখি তিনজন সাক্ষীকে জিগগেস করি,তারা কি বলে ৷'

বাঘ বললে,' আচ্ছা চলুনআপনি যা বলছেন, সাক্ষীরা যদি তাই বলে, আমি আপনাকে ছেড়ে দিয়ে চলে যাবোআর যদি আমার কথা ঠিক বলে, তবে আপনাকে ধরে খাব ৷'

সাক্ষী খুঁজতে দুজনে মাঠে গেলেনদুই ক্ষেতের মাঝখানে খানিকটা মাটি উঁচু রেখে, চাষীরা একটি ছোট পথের মতন করে দেয়, তাকে বলে আলঠাকুরমশাই সেই আল দেখিয়ে বললেন, 'এই আমার একজন সাক্ষী ৷'

বাঘ বললে 'আচ্ছা, ওকে জিগগেস করুন, কি বলে ৷'

ঠাকুরমশাই তখন জিগগেস করলেন, 'ওহে বাপু আল, তুমি বল দেখি, আমি যদি কারো ভালো করি, সে কি উল্টে আমার মন্দ করে ?' আল বললে, 'করে বইকি ঠাকুরএই আমাকে দিয়ে দেখুন নাদুই চাষার ক্ষেতের মাঝখানে আমি থাকি, তাতে তাদের কত উপকার হয়একজনের জমি আর একজন নিয়ে যেতে পারে না, একজনের ক্ষেতের জল আর একজনের ক্ষেতে চলে যায় নাআমি তাদের এত উপকার করি, তবু হতভাগারা লাঙল দিয়ে আমাকেই কেটে তাদের ক্ষেত বাড়িয়ে নেয় !'

বাঘ বললে,'শুনলেন তো ঠাকুরমশাই, ভালো করলে তার মন্দ কেউ করে কি না!'

ঠাকুরমশাই বললেন, 'রোসো, আমার তো আরো দুজন সাক্ষী আছে ৷'

বাঘ বললে, 'আচ্ছা চলুন ৷'

মাঠের মাঝখানে একটা বটগাছ ছিলঠাকুরমশাই তাকে দেখিয়ে বললেন, ' আমার আর একজন সাক্ষী ৷'

বাঘ বললে,'আচ্ছা, ওকে জিগগেস করুন | দেখি, কি বলে ৷'

ঠাকুরমশাই বললেন,'বাপু বটগাছ, তোমার তো অনেক বয়েস হয়েছে, অনেক দেখেছ শুনেছবল দেখি, উপকার যে করে, তার অপকার কি কেউ করে?'

বটগাছ বললে,'তাই তো লোক আগে করে লোকগুলো আমার ছায়ায় বসে ঠান্ডা হয়েছে, আর আমাকেই খুঁচিয়ে আমার আঠা বার করেছেআবার সেই আঠা রাখবার জন্যে আমারই পাতা ছিঁড়ছেতারপর দেখুন, আমার ডালটা ভেঙে নিয়ে চলেছেবাঘ বললে,'কি ঠাকুরমশাই, কি বলছে !'

তখন ঠাকুরমশাই তো মুশকিলে পড়লেনআর কি বলবেন, ঠিক করতে পারলেন নাএমন সময় সেখান দিয়ে একটা শিয়াল যাচ্ছিলঠাকুরমশাই সেই শিয়ালকে দেখিয়ে বললেন,' আমার আর একজন সাক্ষী | দেখি, কি বলে ৷'

তারপর তিনি শিয়ালকে ডেকে বললেন,'শিয়ালপন্ডিত, একটু দাঁড়াওতুমি আমার সাক্ষী ৷'

শিয়াল দাঁড়াল, কিন্তু কাছে আসতে রাজী হল নাসে দূর থেকেই জিগগেস করল, 'সে কি কথা ! আমি কি করে আপনার সাক্ষী হলুম ?

ঠাকুরমশাই বললেন, 'বল দেখি বাপু, যে ভালো করে, তার মন্দ কি কেউ করে ?'

শিয়াল বললে,'কার কি ভালো কে করেছিল, আর কার কি মন্দ কে করেছে, শুনলে তবে বলতে পারি

ঠাকুরমশাই বললেন, 'বাঘ খাঁচার ভিতরে ছিল, আর আমি ব্রাহ্মণ পথ দিয়ে যাছিলুম-'

এই কথা শুনেই শিয়াল বললে,' এটা বড় শক্ত কথা হলসেই খাঁচা আর সেই পথ না দেখলে, আমি কিছুই বলতে পারব না ৷'

কাজেই সকলকে আবার সেই খাঁচার কাছে আসতে হলশিয়াল অনেকক্ষন সেই খাঁচার চারধারে পায়চারি করে বললে,' আচ্ছা, খাঁচা আর পথ বুঝতে পেরেছিএখন কি হয়েছে বলুন ৷' ঠাকুরমশাই বললেন, 'বাঘ খাঁচার ভিতরে ছিল, আর আমি ব্রাহ্মণ পথ দিয়ে যাচ্ছিলুম ৷' অমনি শিয়াল তাকে থামিয়ে দিয়ে বললে, 'দাঁড়ান, অত তাড়াতাড়ি করবেন না, আগে ঐটুকু বেশ করে বুঝে নিইকি বললেন? বাঘ আপনার বামুন ছিল, আর পথটা খাঁচার ভিতর দিয়ে যাচ্ছিল?' এই কথা শুনে বাঘ হো-হো করে হেসে বললে, 'দুর গাধা! বাঘ খাঁচার ভিতর ছিল, আর বামুন পথ দিয়ে যাচ্ছিল !'

শিয়াল বললে, 'রোসো দেখি - বামুন খাঁচার ভিতরে ছিল,আর বাঘ পথ দিয়ে যাচ্ছিল ?'

বাঘ বললে, 'আরে বোকা, তা নয়বাঘ খাঁচার ভিতরে ছিল, বামুন পথ দিয়ে যাচ্ছিল ৷' শিয়াল বললে, ' তো ভারি গোলমালের কথা হল দেখছিআমি কিছুই বুঝতে পারছি নাকি বললে? বাঘ বামুনের ভিতরে ছিল, আর খাঁচা পথ দিয়ে যাচ্ছিল ?'

বাঘ বললে, 'এমন বোকা তো আর কোথাও দেখিনি ! আরে বাঘ ছিল খাঁচার ভিতরে, আর বামুন যাচ্ছিল পথ দিয়ে ৷'

তখন শিয়াল মাথা চুলকাতে-চুলকাতে বললে, 'না ! অত শক্ত কথা আমি বুঝতে পারব না !' ততক্ষণে বাঘ রেগে গিয়েছেসে শিয়ালকে এক ধমক দিয়ে বললে, ' কথা তোকে বুঝতেই হবে | দেখ,আমি এই খাঁচার ভিতরে ছিলুম-দেখ-এই এমনি করে-

বলতে বলতে বাঘ খাঁচার ভিতরে গিয়ে ঢুকলো, আর শিয়ালও অমনি খাঁচার দরজা বন্ধ করে হুড়কো এঁটে দিলতারপর শিয়াল ঠাকুরমশাইকে বলল, 'ঠাকুরমশাই, এখন আমি সব বুঝতে পেরেছিআমার সাক্ষ্য যদি শুনতে চান, তবে তা হচ্ছে এই যে, দুষ্ট লোকের উপকার করতে নেই | কাজেই বাঘ মামার জিতএখন আপনি শিগগির যান, এখনো ফলার ফুরোয়নি ৷' বলে শিয়াল বনে চরতে গেল, আর ঠাকুরমশাই ফলার খেতে গেলেন

The Wicked Tiger
English Translation
 
Right beside the great doors of the King'’s palace, there stood a cage of steel. Inside that cage of steel lived a tiger. Whenever someone passed by the palace gates, the tiger would entreat, "“Open the doors to this cage, will you, kind sir? Just for once?”"

“ "Yeah sure, go about opening doors for you and let you come lunging at my neck, won’'t I, tiger?”" Everybody would reply, and scurry away.

One day a big festive banquet was under way at the King’'s palace. Learned Brahmins arrived in droves to attend the grand luncheon. One of these Brahmin scholars seemed a very gentle and kind person. Seeing him, the tiger bowed in salutation again and again.

The Brahmin noticed the tiger bowing at him and said, ‘"Aha! A cat with manners! What do you want now, dear fellow?’"

With folded hands the tiger said, “"Sir, would you please open the door to this cage for once. I beg of you.”"

The Brahmin, being a very kind man, was moved by the tiger’'s plea and opened the doors to the cage at once.

Out came the ungrateful tiger with a grin on its face and announced, “"Brahmin, now it’'s you I’'m going to eat.”"

Anybody else in his place would have probably ran away, but our Brahmin scholar was no runner. He wore a very disturbed look and said, "“I'’ve never ever heard anything like this. Does anybody in his right mind do that?”"

"“Of course they do, sir. Most everybody would do just that",” said the tiger.

“ "It can’'t be so,"” the Brahmin said. "“Let’'s go ask three arbitrators, and see what they have to say about this.”"

“ "Let'’s go,"” the tiger agreed. But he added, “"If your arbitrators support what you say, I’'ll let you go free. But if they think what I'’m saying is right, I’'ll kill you and eat you."”

The two went into the paddy fields in search of an arbitrator. Between two fields of paddy, the farmers make a ridge by raising the soil a bit along a line. It’'s called a dike. The Brahmin pointed at that dike and said, “"this is one of my arbitrators."

"“Well ask him then, what he thinks,"” the tiger said.

The Brahmin asked the dike, "“Tell me Mr. Dike, if I help somebody, would he try to harm me in return?”"

“"Of course he would, sir. Look at me. I lie between the lands of two farmers and benefit them a lot. It'’s because of me that one cannot grab another’'s land and neither can water from one’'s field flow into another’'s. I do them so much good, but these ingrates, they keep tilling into me all the time, to try and extend their lands.”"

"“Did you hear that, dear sir?”" asked the tiger, "“How people are always harming those who help them?”"

The Brahmin said, "“Wait. I have two more arbitrators to go.”"

"“We'’ll see,"” said the tiger.

Presently they came across a big banyan tree in the middle of the field. The Brahmin pointed at the tree and said, "“There’'s another arbitrator of mine."”

"“Ask him what he thinks, then,"” the tiger said.

"“My good banyan tree, you are a really old and wise tree, you must'’ve seen a lot. Tell me now - does anybody harm the one that helps them?”"

The banyan tree said, "“Of course sir, that’'s the first thing they do. See those people? They came to rest in my cool shade, and then started stabbing at my trunk for gum. Next they tore my leaves to put that gum in. And now, look, they’'re breaking my branches and taking them away.”"

The tiger said, "“Wow, Brahmin sir, hear what your tree is saying!”"

The Brahmin scholar sensed that he was in big trouble. He couldn’'t think of anything to say. At that very moment a fox was passing that way. The scholar indicated the fox and said, "“That’'s my last arbitrator. Let’'s hear what he says.”"

Then he called out to the fox, "“Wily fox, stop for a moment. You’ll be my arbitrator."”

The fox stopped, but he refused to come close. From a distance he asked, “"How come? How can I be your arbitrator?”"

“ "Tell me son, does anyone ever harm somebody who helps him?”"

The fox said, "“I can comment only after hearing who helped whom and who harmed whom and how.”"

The scholar said, "“This tiger was inside the cage and I, poor Brahmin, was going by that path...."…”

Hearing only this far the fox started to object, "“This is really a complicated matter. I can’'t say anything without seeing that cage and that path."”

So they all had to come back to the cage. After examining the cage for quite some time, the fox said, "“So, now I understand the cage and the path. Tell me what happened then?”"

"The tiger was in the cage and I, a Brahmin, was going by this path,"” the scholar started.

Immediately the fox interrupted him, "“No, not so fast sir, first let me grasp this much. What did you say? The tiger was your Brahmin, and path went in that cage?”"

Hearing this, the tiger laughed aloud, "“You idiot. The tiger was inside the cage, and the Brahmin was going by the path.”"

“ "Wait, wait. So the Brahmin was inside cage, and the tiger was walking by the path?”" the fox asked.

“"No, you fool, the tiger was inside cage, and the Brahmin was walking the path,"” the tiger corrected him.

“ "This is very baffling indeed. I can’'t understand it at all. What did you just say? The tiger was inside the Brahmin, and the cage was walking the path?”"

"The tiger raised his voice, “God, you’'re such a fathead! Come on, the tiger was in the cage and the Brahmin was walking by."”

The fox started scratching his head. "“No. I can’'t understand something so complex.”"

By then the tiger was getting real annoyed. He shouted at the fox, "“You have got to get this, you moron. Look, I was inside the cage, like this, see, and..."…”

Just as the tiger entered the cage saying this, the fox closed the door on him at once.

Then the fox told the scholar, "“Sir, now I’'ve figured it out perfectly. If you really care to listen to my opinion, it is this: one should never help bad people. Therefore, on the little argument that you were having, the tiger has won. Now if you'll hurry along, sir, I'’m sure the grand buffet is still on.”"

Saying this, the fox went foraging into the forest and the Brahmin went to have his lunch at the palace.

webstatistics